Tuesday , December 6 2022
Home / Exception / অবসরের পর পেয়েছিলেন ৪০ লক্ষ টাকা, পুরোটাই দরিদ্র শিশুদের পড়াশোনার জন্য দান করলেন শিক্ষক

অবসরের পর পেয়েছিলেন ৪০ লক্ষ টাকা, পুরোটাই দরিদ্র শিশুদের পড়াশোনার জন্য দান করলেন শিক্ষক

বলা হয়, একজন ছাত্রের জন্য শিক্ষক ঈশ্বরের চেয়েও বড়। কারণ তারা সমাজ-পরিবেশ সম্বন্ধে সম্পূর্ণ অজ্ঞ একজন ছোট্ট মানুষকে নিরক্ষতার অন্ধকার থেকে দূরে সরিয়ে আলোর দিকে এগিয়ে নিয়ে যান। আজ এমনই এক শিক্ষকের কথা এই প্রতিবেদনে তুলে ধরতে চলেছি যাকে দেখলে আদর্শ শিক্ষক সম্পর্কে ধারণাটি আরও পরিস্কার হবে।

মধ্যপ্রদেশের পান্না জেলায় বসবাসকারী এক সরকারি স্কুলের শিক্ষক অবসর গ্রহণের পরপরই এক অমায়িক এক কাজ করেছেন। দরিদ্র শিশুরা যাতে ঠিকঠাক শিক্ষালাভ করতে পারে, তার জন্য তহবিলে অবসর নেওয়ার পর প্রাপ্ত ৪০ লক্ষ টাকা দান করেছেন। শিক্ষক বিজয় কুমার চাঁদসোরিয়া তার সন্তানসম ছাত্র-ছাত্রীদের উন্নত শিক্ষা ও উন্নত সুযোগ-সুবিধার জন্য পরিবারের সঙ্গে পরামর্শ করে এই অর্থ তহবিল দান করেন। তাই এই মহৎ কাজের খবরটি বর্তমানে সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে পড়েছে।

শিক্ষক বিজয় কুমার চাঁদসোরিয়া তাঁর ৩৯ বছরের চাকরির পরে, তাঁর সমস্ত অর্থ দরিদ্র ছাত্রদের উদ্দেশ্যে দান করে একটি অনুষ্ঠানে বলেছিলেন, “আমার স্ত্রী এবং দুই ছেলে ও মেয়ের সম্মতিতে আমি এই অর্থ তহবিল দিয়েছি। এবং আমরা সমস্ত গ্র্যাচুইটির অর্থ দরিদ্র ছাত্রদের জন্য স্কুলে দান করার সিদ্ধান্ত নিয়েছি, বিশ্বের কেউ দুঃখ কমাতে পারে না, তবে আমাদের পক্ষে যা করা সম্ভব তা আমাদের করা উচিত।”

একটি সংবাদপত্রের সাথে সাক্ষাৎকরে তিনি বলেন, “সারা জীবনে প্রচুর খারাপ পরিস্থিতিতে পড়েছি এবং সেই পরিস্থিতির মধ্যেও লড়াই ছাড়িনি। একসময় রিকশা চালাতাম, দুধ বিক্রি করতাম যাতে সেই রোজগার দিয়ে পড়ালেখা শেষ করতে পারি। আমি ১৯৮৩ সালে শিক্ষক হিসেবে নিয়োগ হই। ৩৯ বছর ধরে দরিদ্র স্কুলের শিশুদের মধ্যে বসবাস করেছি এবং সর্বদা আমার বেতন থেকে তাদের উপহার এবং পোশাক দিয়েছি, উপহার পাওয়ার পর শিশুদের মুখে আনন্দ দেখে আমি মনে শান্তি পেয়েছি। এই শিশুদের সুখ দিয়ে যেন ঈশ্বরের দর্শন পাওয়া যায়।”

Check Also

একেই বলে বন্ধুত্বের ভালোবাসা! বাড়ির পোষ্য কুকুরের সাথে লুকোচুরি খেলছে ছোট্ট মেয়ে, ভাইরাল ভিডিও

স্যোশাল মিডিয়ায় মাঝেমধ্যেই ভিডিও ভাইরাল হতে দেখা যায়।তাতে তেমন হাসি মজার খোড়াক থাকে,তেমন‌ই থাকে সুপ্ত ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *