Breaking News
Home / Health / দাঁতের গ’র্ত কেন হয়, আর গ’র্ত হলে আপনি কী করবেন জে’নে নিন

দাঁতের গ’র্ত কেন হয়, আর গ’র্ত হলে আপনি কী করবেন জে’নে নিন

আমাদের অতি মূল্যবান সম্পদ দাঁত। বর্তমানে দাঁত ক্ষয় ও দাঁতে ছিদ্র হওয়া একটি সাধারণ স’মস্যা হয়ে দাঁড়িয়েছে। সাধারণত শি’শু, টিনএজার ও বয়স্কদের এই স’মস্যাটি বেশি হতে দেখা যায়। ব্যাকটেরিয়ার সংক্র’মণ ের ফলেই দাঁত ক্ষয় হয়ে থাকে।

ঘন ঘন স্ন্যাক্স ও ড্রিঙ্কস খাওয়া, অনেকক্ষণ যাবত দাঁতের মধ্যে খাবার লে’গে থাকা, ফ্লোরাইড এর অপর্যাপ্ততা, মুখ ড্রাই থাকা, মুখের স্বা’স্থ্যবিধি না মানা, পুষ্টির ঘাটতি এবং ক্ষুধাম’ন্দার স’মস্যা থাকা ইত্যাদি কারণে দাঁতে গর্ত ও দাঁত ক্ষয় রো’গ হয়ে থাকে।

দাঁতের মধ্যে নানা কারণে গর্ত হতে পারে। যেমন দন্তক্ষয় বা ডেন্টাল ক্যারিজ, দাঁত ভে’ঙে গিয়ে কিংবা রুট ক্যানেল চিকিত্সার জন্যও গর্ত হয়ে যায় দাঁত। দাঁতের মধ্যে গর্ত বা ক্যাভিটি হলে তাতে ময়লা, খাদ্যকণা ইত্যাদি জমে সংক্র’মণ হয়। দাঁতে ব্য’থা করে ও শিরশির অনুভূতি শুরু হয়। শি’শুদের এই গর্ত বা ক্যাভিটি হলে তারা ব্য’থায় কষ্ট পায় ও কিছু খেতে গেলেই দাঁত শিরশির করে ওঠে।

ডেন্টাল ক্যারিজ প্রাথমিক অবস্থায় খুবই ছোট কালো গর্তের মতো দেখায়। এই কালো গর্ত দাঁতে তৈরি হলেও ব্য’থা অনুভূত হয় না। তাই শি’শুরাতো বটেই, প্রাপ্তবয়স্করাও পারে না যে গর্ত তৈরি হচ্ছে। এই গর্তের মধ্যে জটিলতা তৈরি হওয়ার পরই কেবল ধ’রা পড়ে। এছাড়া দাঁত ভে’ঙে গেলে বেশির ভাগ ক্ষেত্রে রো’গী সেটা বুঝতে পারে।

রুট ক্যানেল চিকিতসায় রো’গী যদি পরসেলিন ক্রাউন বা মুকুট পরে না নেয়, তাহলেও দাঁতে গর্ত বেড়ে যায়। পরে রুট ক্যানেল এবং ভেতরের জিনিসপত্র সব বেরিয়ে আসে।

দাঁতে গর্ত হলে কী চিকিত্সা করবেন- দাঁতের গর্তের লক্ষণ দেখা দেওয়া মাত্র দেরি না করে শূন্য জায়গাটা ভর্তি করে নেওয়া উচিত। কারণ, ডেন্টাল ক্যারিজ যদি ধীরে ধীরে ডেন্টিন থেকে আরও গ’ভীরে অর্থাত্ পাল্প চেম্বার পর্যন্ত চলে যায়, তবে ব্য’থার তীব্রতা বেড়ে যায়। চিকিত্সা ব্যব’স্থাও জটিল হয়ে পড়ে।

ভা’ঙা দাঁতকে আজকাল ফিলিং ম্যাটেরিয়াল বা লাইট কিউর দিয়ে সুন্দরভাবে পূরণ করা যায়, যা দে’খতে অবিকল স্বা’ভাবিক রঙের হয়। রুট ক্যানেল চিকিত্সা করা দাঁতের ক্রাউন বা মুকুট বসাতে দেরি করা উচিত নয়।

জে’নে নিন ক্যাভিটি প্র’তিরো’ধের ৫ উপায়-

সঠিক নিয়মে প্রতিদিন দুই বেলা দাঁত ব্রাশ করা উচিত

চিনিযুক্ত পানীয় বা আঠালো খাবার, অম্লযুক্ত খাবার, কফি ইত্যাদি এড়িয়ে চলা উচিত

খাওয়ার পর কুলি করে মুখ ধুয়ে ফেলা দরকার। শুধু ব্রাশ নয়, সুতো বা ফ্লস দিয়ে দাঁতের ফাঁক পরি’ষ্কার করা উচিত।

ধূমপান বর্জন করা দরকার। আর অবশ্যই ক্যাভিটি প্র’তিরো’ধের জন্য নিয়মিত দাঁত পরীক্ষা করা আবশ্যক

About Admin

Check Also

এই ১০টি সাধারন লক্ষণই বলে দেবে আপনার কিডনি ড্যামেজ হতে চলেছে, আজই সতর্ক হন

কিডনির অসুখকে নিরব ঘাতক বলা হয়। চুপিসারে এই রোগ আপনার শরীরে বাসা বেঁধে আপনাকে শেষ ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

You cannot copy content of this page